প্রফেসরকে ই-মেইল করার ক্ষেত্রে সবার মনেই কম বেশি একটি প্রশ্ন ঘুরপাঁক খায় “নির্দিষ্ট ডিপার্টমেন্টের কয়েকজন প্রফেসরকে একই সাথে ইমেইল করা যায় কিনা?” -এই প্রশ্নের উত্তরে মতভেদ রয়েছে। কেও কেও বলেন যে, একইদিনে বেশ কয়েকজন প্রফেসরকে নক করা ঠিক না। আবার দুইএকজন হয়তো বলবে করলেও সমস্যা নেই। আমি আমার একটা পার্সোনাল অভিজ্ঞতা শেয়ার করছি। আমি বেশ কিছু বিশ্ববিদ্যালয়ের ৩/৪ জন প্রফেসরকে একই দিনে এক সময়েই নক করেছি। রিপ্লাইও পেয়েছি ভালোই। তেমন কোন সমস্যা কখনোই ফেস করিনি। কিন্তু একদিন বিপত্তির সম্মুখীন হলাম।সেটাই শেয়ার করছি।

একবার ‘ক’ বিশ্ববিদ্যালয়ের ৩/৪ জন প্রফেসরের সাথেই আমার কাজ বেশ ভালোই মিলে গেল। যার সাথে সবচেয়ে বেশি মিল ছিল, তাকেই প্রথমে মেইল পাঠালাম।

৩/৪ মিনিটের মাথায়ই সে রিপ্লাই দিল। ‘তোমার সাথে আমার কাজের বেশ ভাল মিলই আছে, তুমি এপ্লাই করো আর এপ্লিকেশনে আমার নামও দিতে পারো। আমি তোমার ব্যাপারে আগ্রহী’। সে মেইলটাতে ডিপার্টমেন্ট কোঅরডিনেটরকেও(উনিও একজন প্রফেসর) যুক্ত করে দিলেন, যাতে আমি তার সাথে এপ্লিকেশনের বিষয়ে কথা বলতে পারি।

আমি এত তাড়াতাড়ি পজিটিভ রিপ্লাই পেয়ে বেশ খুশি।

কিছুক্ষণের মধ্যেই ডিপার্টমেন্ট কোঅরডিনেটর আমাকে একটা মেইল দিলেন। এপ্লিকেশন এর দিকনির্দেশনা দিলেন এবং বললেন, ‘যদিও ‘ম’ প্রফেসর তোমার ব্যাপারে আগ্রহ প্রকাশ করেছেন, তবু তুমি আরও কয়েকজনকে নক করতে পারো। এতে কোন কারনে যদি ‘ম’ প্রফেসর তোমাকে নিতে না পারে, তুমি অন্যদের কাছে সুযোগ পাবে’।

আমি উনার কথায় আরও বেশি উৎসাহ পেলাম।আমি সাথে সাথেই আরও ৩/৪ জনকে (যাদের সাথে আমার কাজ মিলে কমবেশি) মেইল দিলাম। দুইজন রিপ্লাইও দিল, যদিও নেগেটিভ রিপ্লাই। আমি আর ঘাঁটালাম না।

৩/৪ দিন পর হঠাৎ রাত তিনটায় ‘ম’ প্রফেসর আমাকে মেইল দিলেন। ‘আমি শুনলাম যে, তুমি আমাকে ছাড়াও আরও কয়েকজনকে মেইল পাঠিয়ে তাদের সাথে কাজের আগ্রহের কথা জানিয়েছ। তুমি সত্যিকারভাবেই যদি আমার সাথে কাজ করতে চাও, তবেই কেবলমাত্র আমি তোমার কথা চিন্তা করবো, নাহলে আমি আর আগাবো না’।

আমার মাথায় তো আকাশ ভেঙ্গে পরল। পাঁচ মিনিটের জন্য মাথা পুরো ব্ল্যাংক হয়ে গেল। কী করবো বুঝতে পারছিলামনা। তারপর ভাবলাম, যেটা সত্যি সেটাই বলব। আমি তাকে বললাম, ডিপার্টমেন্ট কোঅরডিনেটরই আমাকে সাজেশন দিয়েছেন, যাতে আমি আরও কয়েকজনকে নক করি(পুরা ডিটেইলসটাই বললাম)। সাথে এও বললাম যে, ‘আমি প্রথম থেকেই আপনার সাথে কাজের ব্যাপারেই বেশি আগ্রহী ছিলাম, এবং আপনি সুযোগ দিলে আমি আপনার আন্ডারেই কাজ করতে চাই’। উনি তখন বললেন, ‘ঠিক আছে, আমি তোমার এপ্লিকেশন পজিটিভলিই দেখব’

পরে অবশ্য ওই বিশ্ববিদ্যালয় থেকে আমার এডমিশন অফারও এসেছিল, ওই ‘ম’ প্রফেসরের আন্ডারেই।

এই হল একইসাথে একাধিক প্রফেসরকে নক করার খারাপ অভিজ্ঞতা। যদিও আমি সেই যাত্রায় বেঁচে গিয়েছিলাম, কিন্তু এই ধরনের রিস্ক থাকতেই পারে- এই বিষয়টাও মাথায় রাখা দরকার।

আপনি একজনকে মেইল করার পর রিপ্লাই না পেলেও ৩/৪ দিন অপেক্ষা করতে পারেন, তারপর অন্যদের মেইল দিতে পারেন। এটা সেইফ সাইডে থাকা।

বিঃ দ্রঃ বিশ্ববিদ্যালয় আর প্রফেসরের নাম উল্লেখ করা এই গল্পে নিষ্প্রয়োজনীয় বলে মনে হয়েছে। ঘটনাটাই মুখ্য।

Comments

comments