উচ্চ শিক্ষা অর্জনে বিদেশ গমনের যাত্রাপথে সবশেষ ধাপ ভিসা ইন্টারভিউ (সাক্ষাৎকার)। কথায় আছে, শেষ ভালো যার সব ভালো তার। সে কারনে এই ধাপে মনোনিবেশন করা অত্যন্ত জরুরী। সামান্য ভুলের কারণে আপনার ভিসা পাওয়ার সম্ভবনা কমে যেতে পারে অনেকাংশ। সফলভাবে এই ধাপ শেষ করার জন্য চাই আগাম পরিকল্পনা। আগেভাগে দরকারি সব কাগজ-পত্র প্রস্তুত করে রাখা। মানসিকভাবে চাঙ্গা থাকা। ভিসা সাক্ষাৎকারের আগাম অভিজ্ঞতা না থাকায় অনেকে ভড়কে যেতে পারেন। ভুলে যেতে পারেন দরকারি কাগজ-পত্র সাথে রাখার বিষয়টি।

ভিসা ইন্টারভিউ পর্বে যা যা লাগবে:

অ্যাম্বেসিতে ভিসার জন্য আবেদনকারির সংখ্যা অনেক বেশি থাকায় সব সময়ই ঘড়ির কাঁটার সাথে পাল্লা দিতে হয় ভিসা অফিসারকে। আপনার ডকুমেন্ট চাওয়া মাত্র যত তাড়াতাড়ি দেওয়া যায় ততোই উত্তম। সে কারনে জেনে নেওয়া যাক ভিসা ইন্টারভিউ এর জন্য কি কি ডকুমেন্ট লাগবে-

[alert style=”danger”]

১) ভিসা সাক্ষাৎকার পত্র (Appointment Confirmation)

২) আই-২০ ফরম (I-20 form)

৩) সেভিস ফি-এর রশিদ  (Sevis Fee confirmation)

৪) ডিএস-১৬০ ফরম (DS-160 form)

৫) জিআরই/জিম্যাট/টোফেল/আয়েল্টস স্কোর (GRE/GMAT/TOEFL/IELTS)

৬) স্পন্সরকারীর ব্যাংক সার্টিফিকেট (Sponsor’s Bank Certificate)

৭) বিগত ছয় মাসের ব্যাংক ট্রানজেকশন ( Bank Transaction)

৮) ট্রেড লাইসেন্স/টিআইএন সার্টিফিকেট (Trade License/TIN Certificate)

৯) স্পন্সরকারীর হলফনামা (Sponsors Affidavit)

১০) স্পন্সরকারীর পরিচয়পত্র/ভিজিটিং কার্ড (Sponsor’s NID/Visiting Card)

১১) স্পন্সরকারীর সাথে আপনার সম্পর্কের প্রমাণপত্র

১২) স্পন্সরকারীর আর্থিক স্বচ্ছলতা প্রমাণের কোন ডকুমেন্ট

১৩) সার্টিফিকেট (Educational Certificates)

১৪) প্রসংশাপত্র (Testimonials)

১৫) প্রফেসরের সাথে আপনার ই-মেইল বার্তায় যত আলোচনা হয়েছে তার প্রিন্ট করা কপি

১৬) এর বাইরে আপনার আরো কোন দরকারি ডকুমেন্ট থেকে থাকলেও সেটি নিয়ে যেতে পারেন

[/alert]

 

আপনার করণীয় হবে যা:

[alert style=”info”]

১) আগের দিন ইন্টারভিউ তারিখ মিলিয়ে আরো একবার নিশ্চিত হওয়া।

২) সবগুলো দরকারি কাগজ একটি ফাইলে জমা করে রাখা।

৩) নির্ধারিত সময়ের আগে অ্যাম্বেসিতে পৌছানো।

[/alert]