এই আর্টিকেলটি পড়ার পরিবর্তে ভিডিও থেকেও জেনে নিতে পারেন।

Topic-Summaryহিসাবের সুবিদ্বার্থে ধরা যাক আপনি আগামী ২০২১ ফল সেমিস্টারে আমেরিকার ৬ টি বিশ্ববিদ্যালয়ে আবেদন করতে যাচ্ছেন। তাহলে দেখে নেওয়া যাক আমেরিকা যাওয়া পর্যন্ত আপনার কতো খরচ হতে পারে-

খরচের হালচাল:

আগাম খরচ:

জিআরই রেজিস্ট্রেশন ফি + চারটি ইউনিভার্সিটিতে স্কোর পাঠানো         ২০,৫০০ টাকা।

দুইিট ইউনিভার্সিটিতে স্কোর পাঠানো (৩,৫০০x২)                                    ৭,০০০ টাকা।

টোফেল রেজিস্ট্রেশন ফি + চারটি ইউনিভার্সিটিতে স্কোর পাঠানো          ১৯,৫০০ টাকা।

দুইটি ইউনিভার্সিটিতে স্কোর পাঠানো (৩,০০০x২)                                    ৬,০০০ টাকা।

___________________________________________________________

মোট আগাম খরচ                                                                             ৫৩,০০০ টাকা।

আবেদন খরচ:

ইউনিভার্সিটির আবেদন ফি (৬,০০০x৬)                                              ৩৬,০০০ টাকা।

ট্রান্সক্রিপট ইস্যু করা (১,৫০০x৬)                                                             ৯,০০০ টাকা।

ট্রান্সক্রিপ্ট বা ডকুমেন্ট পাঠানোর খরচ (২,২০০x৬)                            ১৩,২০০ টাকা।

___________________________________________________________

মোট আবেদন খরচ                                                                        ৫৮,২০০ টাকা।

মোট আগাম খরচ   + মোট আবেদন খরচ   

                                (৫৩,০০০ + ৫৮,২০০)                                 ১১১,২০০ টাকা।   

ভিসা প্রসেসিং খরচ:

অ্যাম্বাসি ফি                                                                                         ১৩,৭৬০ টাকা।

সেভিস ফি [আই-২০- ১৯,২০০ + ডিএস ফর্ম- ১৭,৭০০)                ৩৬,৯০০ টাকা।

___________________________________________________________

ভিসা প্রসেসিং বাবদ মোট খরচ                                                ৫০,৬৬০ টাকা।

ভিসা পরবর্তী খরচ:

ব্যক্তিগত শপিং                                                                                  ১৫,০০০ টাকা।

প্লেন ভাড়া (কম বেশি)                                                                   ১,০০,০০০ টাকা।

___________________________________________________________

ভিসা পরবর্তী মোট খরচ                                                       ১,১৫,০০০ টাকা।

মোট ভিসা প্রসেসিং  + মোট ভিসা পরবর্তী খরচ

          (৫০,৬৬০ + ১,১৫,০০০)                                             ১,৬৫,৬৬০ টাকা।

সর্বমোট খরচ

       (১১১,২০০+১,৬৫,৬৬০)                                               ২,৭৬,৮৬০ টাকা।

আয়ের হিসাব:

আয়:

একজন রিসার্চ অ্যাসিস্টেন্ট এর বছরে পারিশ্রমিক গড়ে                       ৩০,০০০ ডলার।

ব্যায়:

ইনকাম ট্যাক্স বাবদ কেটে নিবে (১৫%)                                                   ৪,৫০০ ডলার।

থাকা খাওয়া বাবদ খরচ গড়ে (১০০০ডলার x ১২)                                  ১২,০০০ ডলার।

_____________________________________________________________

মোট ব্যায়                                                                                        ১৬,৫০০ ডলার।

বছরে প্রকৃত আয় (৩০,০০০-১৬,৫০০) ডলার                                        ১৩,৫০০ ডলার।

টাকার হিসাবে (১৩,৫০০x৮৫)                                                            ১১,৪৭,৫০০ টাকা।

প্রতি মাসে (১১,৪৭,৫০০/১২)                                                                  ৯৫,৬২৫ টাকা।

সুতরাং, থাকা খাওয়া বাদ দিয়ে প্রতি মাসে আপনি কম বেশি ৯৫ হাজার টাকা বাঁচাতে পারবেন।

সে হিসেবে মাত্র ৩ মাসে আপনার সমস্ত খরচের টাকা উঠে আসবে।

স্টেট ভিত্তিক আমেরিকায় দৈনন্দিন খরচের হিসাব সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে এই আর্টিকেলটি পড়ুন- লিংক

Comments

comments

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *