জীবনে হতাশ হবেন না। একটা রাস্তা বন্ধ হওয়া মানে হাজারটা রাস্তা খুলে যাওয়া। যারা আমেরিকাতে ফার্মাসিস্ট হওয়ার লম্বা প্রসেস দেখে ঘাবড়ে যান নি বরং ভেবেছেন আপনার ও যদি ৫ বছরের ডিগ্রী থাকত, তাহলে আপনি একবার হলেও চেষ্টা করতেন তাদের জন্য আজ কানাডাতে রেজিস্টার্ড ফার্মাসিস্ট হওয়ার নিয়মাবলী নিয়ে আসলাম।

কানাডা এখনও আমাদের দেশের ৪ বছরের ডিগ্রী অনুমোদন দেয়। ২০ আগস্ট ২০১৪ এর পর থেকে কানাডা নিয়মাবলীতে কিছু পরিবর্তন আনে। তারা বাইরের দেশে পড়ালেখা করা ফার্মাসিস্টদের আই পি জি (IPG or International Pharmacy Graduate) নামে সম্বোধন করা শুরু করে।তারা আসলে চায় বাইরের দেশের ফার্মাসিস্টরা যাতে সহজেই কানাডাতে প্র্যাকটিস করতে পারে।এই ব্যাপারে তারা আমেরিকার চেয়ে ভাল। আমেরিকায় রেজিস্টার্ড হওয়ার ব্যাপারে কোথাও ঠিক ঠাক তথ্য একসাথে পাওয়া যায় না। কানাডা একটা নতুন ওয়েবসাইট চালু করে তাতে বিস্তারিত তথ্যাবলী যুক্ত করে, যাতে সহজেই বাইরের দেশের ফার্মাসিস্টরা কানাডাতে রেজিস্টার্ড হতে পারে। আমার এই আর্টেকেল এর অধিকাংশ তথ্যাবলী ঐ Website থেকেই নেয়া।

১. কিভাবে কানাডা যাবেনঃ

কানাডাতে রেজিস্টার্ড ফার্মাসিস্ট হতে হলে দুটি পরীক্ষা দিতে হয়। যার কোনটাই বাংলাদেশ এ বসে দেয়ার সুযোগ নেই। তাহলে ফার্মাসিস্ট হতে হলে আপনার প্রথম কাজ হল কানাডা যাওয়া। এর উপায় দুটোঃ

১। স্কলারশিপ নিয়ে কানাডা পড়তে যাওয়া, তারপর বাকি প্রসেসগুলো সম্পন্ন করা। কানাডা যাওয়া তুলনামূলক ভাবে সোজা কারন GRE লাগে না। IELTS এ মোটামুটি স্কোর থাকলেই হয়। কানাডাতে প্রফেসরকে মেইল করাটা সকল ভর্তি প্রক্রিয়ার আগে করতে হয়। তবে কিছু কিছু ডিপার্টমেন্ট এই সরাসরি TA, RA, Fellowship পাওয়া যায়। উদাহরণস্বরূপ ইউনিভার্সিটি অব আলবার্টা এর ফার্মাকোলোজি ডিপার্টমেন্ট এ ভাল CGPA আর IELTS এ ৭ এর উপরে থাকলেই হয়। স্কলারশিপ নিয়ে কানাডা পড়তে যাবার ব্যপারে বিস্তারিত বিভিন্ন গ্রুপ এ পাবেন। বিশেষ করে (Prospective of Bangladeshi Students In Canadian Universities(PBSCU)) এই গ্রুপ এ বিস্তারিত বর্ণনা করা আছে। আমি ওইদিক এ আর যাচ্ছি না।

২। ফেডারেল স্কিল্ড মাইগ্রেশন। কানাডাতে কেন্দ্রীয় পদ্ধতিতে প্রতি বছর বিভিন্ন দেশ থেকে নির্দিষ্ট সংখ্যক মানুষ নেয়। এই পদ্ধতি বেশি গ্রহনযোগ্য। বর্তমানে এটি ফার্মাসিস্ট দের জন্য বন্ধ। তবে এটি বন্ধ চালু হয়। আবার খুলে দিতে পারে যেকোন সময়। এই ব্যপারে বিস্তারিত তথ্য পাবেন এইখানে http://bit.ly/1OjApMc । এভাবে গেলে প্রধান সুবিধা হল আপনি নিশ্চিন্ত মনে পরবর্তী ধাপগুলো সম্পূর্ন করতে পারবেন। কোন ডেডলাইন এর চিন্তা ছাড়া।

২. গেটওয়ে এনরোলমেন্টঃ

কানাডা যাওয়ার পর প্রথম কাজ হল আপনি যে রেজিস্টার্ড হতে চান এই জন্য নাম লেখানো। আপনাকে গেটওয়ে এনরোলমেন্ট করতে হবে। এই স্টেপটা আগে ছিল না। ২০ আগস্ট ২০১৪ এর পর থেকে নতুন পদ্ধতি আই পি জি দের জন্য। ফ্রি হলে ভালই ছিল কিন্তু তা তো আর দিবে না। আপনাকে এইটাতে রেজিস্ট্রেশন করে আপনাকে প্রথম কাজ শুরু করতে হবে। এর জন্য আপনাকে গুনতে হবে ৩২৫ কানাডিয়ান ডলার বা ১৯,১০০ টাকা। (সাথে ট্যাক্স)  গেটওয়ে এনরোলমেন্ট করতে হয় এই লিঙ্ক এ http://www.pharmacistsgatewaycanada.ca/

গেটওয়ে এনরোলমেন্ট এর পরের ধাপগুলো অনেকটা আমেরিকার মতই। এক নজরে একটু দেখে নেয়া যাকঃ

canadianrph_1_new

৩. ডকুমেন্ট এভালুয়েশনঃ

কানাডাতে ফার্মেসি শিক্ষা ও এই পেশার নিয়ন্ত্রক প্রতিষ্ঠান পি.ই.বি.সি (PEBC:Pharmacy Examining Board of Canada) । এই প্রতিষ্ঠান আপনার সার্টিফিকেট, ট্রান্সক্রীপ্টসহ সকল কাগজপত্র পরীক্ষা করে আপনাকে প্রথম পরীক্ষায় বসার অনুমতি দেবে। বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সব কাগজপত্র পাঠাতে হয়, অনেকটা ওয়েস এভালুয়েশন এর মত। এই কাজ এর জন্য আপনার খরচ হবে ৫৩০ কানাডিয়ান ডলার বা প্রায় ৩১,১০০ টাকা এবং সাথে ট্যাক্স। এই সম্পর্কে বিস্তারিত পাবেন এখানে http://bit.ly/1L6rsoH। এই ধাপটা নিয়ে চিন্তার কিছু নেই। বাংলাদেশ থেকে যারা কানাডাতে আছেন তারা কোন প্রকার ঝক্কি ঝামেলা ছাড়াই এই ধাপটা সম্পূর্ন করেছেন।

৪. পিইবিসি এভালুএশান এক্সামঃ

সব কাগজ পছন্দ হলেও এইবার ওরা টেস্ট নিবে, সব কিছু ঠিকমত পড়েছেন, না ফাকিবাজি করেছেন।  কি ভাবছেন? কোথায় কোথায় ফাকিবাজি করেছেন? ভুলে যান। সামনে কি আছে আর কি করা যায়, তা নিয়ে ভাবুন।
এই পরীক্ষায় ৪টা অংশ থেকে MCQ টাইপের প্রশ্ন থাকেঃ

canadianrph_2_new

এই পরীক্ষার ফি ৫১৫ কানাডিয়ান ডলার বা ৩০,০০০ এর উপর টাকা সাথে ট্যাক্স। সিলেবাস, প্রশ্নের, ধরন সম্পর্কে বিস্তারিত পাবেন এখানে http://bit.ly/1ik2ZBa

৫. ফার্মাসিস্ট কোয়ালিফায়িং এক্সামঃ

আগের পরীক্ষায় পাস করা মানে আপনার শিক্ষাগত যোগ্যতা কানাডার ফার্মেসি গ্রাজুয়েট এর সমান। এইবার আসল পরীক্ষা ফার্মাসিস্ট কোয়ালিফায়িং এক্সাম। এই পরীক্ষার দুইটা অংশ একটা এম সি কিউ (MCQ) আর একটা অসকি (OSCE) বা মৌখিক পরীক্ষা। এই পরীক্ষার ফি ১৯০০ ডলার বা ১ লক্ষ ২৭ হাজার টাকা, সাথে ট্যাক্স।

এই সম্পর্কে বিস্তারিত পাবেন এইখানেঃ http://bit.ly/1OHWMc9

কি এত পরীক্ষা! কিভাবে কি করবেন ভাবছেন? বাংলাদেশ থেকে প্রতি বছর ২০ জন এর মত ফার্মাসিস্ট ওখানে রেজিস্টার্ড হয়। বিশাল একটা Alumni আছে। সবাই একসাথে মিলে পড়ে, এইরকম একটা লাইব্রেরী আছে। আর চোথা/নোট তো আছেই, শুধু চোথা পড়ে অনেকেই পাস করে। ওখানে প্রাইভেট পাবলিক ভার্সিটি কোন ভেদাভেদ নেই সবার একটাই পরিচয় বাঙালী ফার্মাসিস্ট।ফয়সল ভাই এর কাছে জিনিসটা জানতে পেরে অনেকে ভাল লেগেছে। উনি এই ডিসেম্বর এ OSCE দিবেন। উনার সাথে অন্যান্য বিভিন্ন ইউনির অনেক ভাইয়া আপু এক্সাম দিবে।

[alert style=”info”]এতক্ষন পর্যন্ত ঠিক আছে, আপনি পাস ও করলেন। কিন্তু এইবার আপনাকে ১০০০ ঘন্টা ইন্টার্নশিপ করতে হবে। যেই প্রোভিন্স এ কাজ করবেন সেখানে। এই কাজ করতে হলে আপনাকে কানাডা এর পার্মানেন্ট রেসিডেন্ট(পি আর) অথবা ওই দেশের নাগরিক হতে হবে।যদি স্কিল্ড মাইগ্রেশন চালু হয় তাহলে তো যাবেনই পি আর নিয়ে। তা না হলে, আপনি যাবেন মাস্টার্স বা পিএইচ.ডি. কোর্স এ। আপনি টাকা পাবেন টিএশিপ আরএশিপ এ কাজ করে। এক বছর টিএ এর অভিজ্ঞতা দেখিয়ে আপনি রেসিডেন্সি এর জন্য আবেদন করতে পারেন, যা সব কিছু শেষ হয়ে অনুমোদন হতে ৩ বছর লাগে ।তার মানে আপনার কানাডা ঢুকার পর প্রায় পিএইচডি শেষ হয়ে যাবে পি আর পেতে পেতে।তার পর গিয়ে আপনি পরের ধাপ এ আগাতে পারবেন।[/alert]

৬. ইন্টার্নশিপঃ

এর পর এক হাজার ঘণ্টা ট্রেইনিং বা ইন্টার্নশিপ, এইটার জন্য ও রেজিস্ট্রেশান লাগে, ৫১৭ কানাডিয়ান ডলার প্রায় ৩০,০০০ টাকা এবং ট্যাক্স। এইক্ষেত্রে কোম্পানী খুব ভাল হলে আপনাকে কিছু টাকা হয়ত বেতন হিসেবে দিতে পারে, কিন্তু এর সম্ভাবনা খুবই কম। আপনাকে নিজের টাকায় খেয়ে পরে, বিনা বেতনে চাকরি করতে হবে।
এর পর ব্রিজিং প্রোগ্রাম নামে একটা কোর্স আছে ১১০০০-১৩০০০ ডলার লাগে, তবে এইটা সব স্টেট এ বাধ্যতামুলক না। যেমনঃ আলবার্টাতে লাগে না।  এই ব্যপারে আপনাকে একটু সচেতন হতে হবে। এমন প্রোভিন্স বাছাই করতে হবে যেখানে এই ব্রিজিং প্রোগ্রাম লাগে না।

৭. ল’ এক্সামঃ

এটা ছোট একটা পরীক্ষা। ফী ১৪৪ কানাডিয়ান ডলার প্রায় ৮,৫০০ টাকা। এই এক্সাম খুবই সহজ। এক সপ্তাহ পড়েই পাস করা যায়। এই ব্যাপারেও আগের ভাইয়া আপুদের নোট পাওয়া যায়।

৮. লাস্ট বাট নট দা লিস্টঃ

সব শেষে যেই স্টেট এ প্রেকটিস করবেন ওই স্টেট এ পারমিট নিতে হবে। না আর কোন পরীক্ষা নেই। আগের সব ডকুমেন্টসহ  ৭৭৪ কানাডিয়ান ডলার বা ৪৫,৫০০ টাকা (সাথে ট্যাক্স)  অথরিটির কাছে দিতে হবে এবং একটা ২ মিলিয়ন ডলার এর প্রফেশানাল লাইএবিলিটি ইন্সুরেন্স এর কপি ও দিতে হবে ।(ইন্সুরেন্স এর ব্যাপারে কোথাও কোন clear ধারনা দেয়া নেই)
এই সব শেষ হলে আপনি চাকরি শুরু করবেন।

৯. বেতনঃ

  • এত কষ্ট করলেন, বেতনটাও দারুন। বছরে ৬৫ হাজার থেকে ১ লক্ষ ১০ হাজার কানাডিয়ান ডলার।
  • সাথে প্রতিটা ঔষধ এর জন্য ১০ ডলার করে মানে একটা প্রেসক্রিপশান এ যদি ৫ টা ড্রাগ থাকে তাহলে ৫০ ডলার। (এই তথ্যটার সত্যতা জানা সম্ভব হয় নি, এই তথ্যটি জানিয়েছেন ফয়সল ভাই)

কিছু কথাঃ

  • এই আর্টিকেলটা রিভিউ করতে দিয়েছিলাম রিদোয়ানকে। তার মনে হয়েছে ব্যপারটা অনেক লম্বা আর কঠিন। ওর মত আরো অনেকের, এই প্রক্রিয়া দেখে মনে হতে পারে অনেক কঠিন। হ্যাঁ, আমি মেনে নিচ্ছি অনেক কঠিন, কিন্তু আমাদের সিনিয়ররা পারলে আমরা পারব না কেন? আর একটা কাজ করুন জ্যক মা এর উপর এই   আর্টিকেলটা http://bit.ly/1NONKtF  পড়ে আসুন। মনে একটু হলেও সাহস পাবেন।
  • আমি আপনাদের সুবিধার জন্য ডলার কে টাকায় কনভার্ট করে দিয়েছি, কিন্তু ওখানে যাওয়ার পর কেউ আর কনভার্ট করে খরচ খরবেন না।তাই এখন বেশি মনে হলেও পরে আর এইরকম মনে হবে না।
  • ওখানে GRE এর কোন ব্যপার নেই, শুধু IELTS হলেই চলবে।
  • পি আর পাওয়াটা একটু কষ্ট, অনেক সময় পিএইচডি শেষ হয়ে যায়। এই ব্যপারটা কানাডিয়ান সিস্টেমের একটা দুর্বলতা। পিআর পেলে তবেই কেবল আপনি ইন্টার্নশিপসহ পরবর্তী বিষয়গূলোতে আগাতে পারবেন।
  • যারা ৫ বছরের কোর্স এ পরছে তাদের জন্য আমেরিকায় প্রসেস তুলনামূলক ভাবে সহজ এবং কম সময় লাগে। তবে GRE ভীতি থাকলে আপনিও চেষ্টা করতে পারেন।

কৃতজ্ঞতাঃ

ফয়সল ভাই, ফারহানা আপু

তথ্যসুত্রঃ

১। http://www.pharmacistsgatewaycanada.ca/